এভারেস্ট জয়ের কৃতিত্ব নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গন উত্তপ্ত

এভারেস্টে বাংলাদেশের পতাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক

এভারেস্টজয়ী  প্রথম বাংলাদেশির কৃতিত্ব নিয়ে আদালতে মামলা হয়েছে। মামলা করেছেন মূসা ইব্রাহিম। চন্দ্রাবতী একাডেমি প্রকাশিত সকাল বেলার পাখি নামে একটি প্রকাশনায় “বাংলাদেশের মানুষ আজ হিমালয়ে উঠে দাঁড়িয়েছে” প্রবন্ধে বলা হয়েছে বাংলাদেশের পক্ষে প্রথম এভারেস্ট জয় করেছে এম. এ মুহিত। যদিও এভারেস্টজয়ী প্রথম বাংলাদেশির নাম মূসা ইব্রাহিম। নিজের কৃতিত্ব পুনরুদ্ধারে আদালতের শরনাপন্ন হয়েছেন তিনি।

এ ঘটনায় দু:খ পেয়েছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম। তাঁর মতে মূসার মামলা করার বিষয়টি নিন্দনীয়। মাত্র একটি প্রবন্ধে মুহিতের নাম লেখাতেই মামলা করাটা উচিত হয়নি। তিনি বলেন, “কীইবা হয় একটু তথ্য বিকৃতি করলে!।” মির্জা ফখরুল আপসোসের সুরে বলেন, “এই যে বিএনপি দীর্ঘদিন ধরে বলে আসছে মেজর জিয়াউর রহমান স্বাধীনতার ঘোষক ছিলেন, তাতে দেশের কোন বিষটা মরেছে! এসব করে লাভ হবে না। জাতি জানে মুহিতই প্রথম এভারেস্ট জয়ী। মুহিত আমার আপনা পেটের ভাই; আমি জানি মুহিত কী করে, কোথায় যায়।” মুহিতের পক্ষে ডাকা এক সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল এসব বলেন।

সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন ‘রামু তদন্তের’ নায়ক  ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ। তিনি প্রথমে মুহিতের প্রতি সংহতি জানান। সংহতি জানানোর পর মূসাকে নিন্দা জানান। নিন্দা জানানোর পর দু:খ প্রকাশ করেন। দু:খ প্রকাশ করতে করতে তিনি শুয়ে পড়েন। এসময় তিনি বলেন, “দু:খ পেলে আমি শুয়ে পড়ি। রামুর ঘটনা তদন্ত করে আসার পর থেকে খালি শুইতে ইচ্ছে করে। কিন্তু আমার সাথে কেউ শোয় না।” মুহিতের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, “যে যাই করুক তুমি নিজেকে প্রথম বিজয়ী দাবি করে যাও। মূসা মামলা করেছে করুক। তদন্ত করবো আমি। প্রতিবেদন লিখে রেখেছি, তদন্ত করতে তোমার বাসায় আসবো। আমা একটু শুইতে দিও।”

এদিকে মূসার পক্ষ নিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন আওয়ামীলীগ মুখপত্র মাহবুব উল আলম হানিফ। তিনি বলেন, “যেহেতু মুহিতের পক্ষে বিএনপি আছে, সেহেতু মূসার পক্ষে আম্রা আছি। মূসাই শুরু মূসাই শেষ, মূসাই সোনার বাংলাদেশ।” বাংলাদেশের পক্ষে একমাত্র এভারেস্ট জয়ী মূসা ইব্রাহিম। এমন দাবি করে হানিফ বলেন, “সে ইব্রাহিম লৌদির পানিপথ দিয়ে ঘোড়া দাবড়িয়ে এভারেস্ট জয় করেছে। যাবার আগে আমার দোয়া নিয়ে গেছে।”

আমাদের হাতে এইমাত্র খবর আসলো জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হু মু এরশাদও সংবাদ সম্মেলন ডেকেছেন। এসময় তিনি লিখিত বক্তব্য মুখ দিয়ে পাঠ করেন। এরশাদ বলেন, “কে মূসা? কে মুহিত? টু এন্ড ট্রুলি এভারেস্ট উইনার নিশাত মজুমদার এবং ওয়াসফিয়া নাজরিন। আই নো বোথ অব গার্ল… আই লাইক দেম।”

এদিকে ইসলামী দলগুলো হরতালের হুমকী দিয়েছে। আওয়ামী ওলামা লীগ ও ইসলামী ঐক্যজোটের এক যৌথ বিবৃতিতে এ হুকমী দেয়া হয়। বিবৃতিতে মুফতি আমিনী বলেন, “ইতিহাস সাক্ষী নবী মূসা তুর পাহাড়, এভারেস্ট পাহাড় পাড়ি দিয়েছেন হাজার হাজার বছর আগে। সেই এভারেস্ট নিয়ে মামলা হওয়ার ফলে ইসলামের অবমাননা হয়েছে। সুতরাং এ সরকারকে ক্ষমতা থেকে নামানো পর্যন্ত হরতালের ডাক দিবো আম্রা।”

প্রিয় পাঠক, এখন পর্যন্ত যতটুকু জেনেছি আপনাদেরকে সবই জানালাম। আমাদের প্রতিবেদক জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বসে আছেন। নতুন কোন বিবৃতি পেলেই আপনাদেরকে জানানো হবে।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: