যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে জামায়াতের বিক্ষোভ মিছিল

যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে স্মরণকালের সবচেয়ে বড় বিক্ষোভ মিছিল। ছবি - ব্লগার ওয়ানম্যান

পল্টন প্রতিনিধি

গ্রেফতারকৃত যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে গতকাল রাজধানীতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে জামায়াতে ইসলামী। মিছিলটি কোন রকমের পুলিশী বাধা পুরানা পল্টন থেকে শুরু করে নয়াপল্টনে গিয়ে শেষ হয়। মিছিলে নেতৃত্ব দেন জামায়াতের শীর্ষ নেতৃবৃন্দ।

নিজামী মুজাহিদদের বিচার চাই – লিখিত ব্যানার ধরে প্রায় ৫০ হাজার মানুষের মিছিলটি রাজধানীবাসীকে ভীষণ চমকে দিয়েছে। রাস্তার দু’পাশে লাখ লাখ মানুষ মিছিলটিকে স্বাগত জানায়। অনেকেই বলেছেন, “আওয়ামীলীগ কখনোই এদের বিচার করতে পারবে না। জামায়াতের প্রতি আমাদের আস্থা আছে। এবার একটা কিছু হবে।”

কিছুদিন আগে জামায়াত আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকৃত যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চায়। এর কিছুদিন পরই যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে সবচেয়ে বড় মিছিলটি জামায়াতই করলো। এ নিয়ে দেশের রাজনৈতিক অঙ্গণ বেশ আলোচনামূখর।

যুদ্ধাপরাধের বিচারে জামায়াতের সমর্থন দানের পর বাকি থাকলো বিএনপি। একমাত্র বিএনপি ছাড়া এখন সবগুলো রাজনৈতিক দলই যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চাইছে। এ বিষয়ে বিএনপির এক শীর্ষ নেতা বলেন, “আমাদের ম্যাডাম জামায়াতকে যুদ্ধাপরাধী বলতে রাজি নন। তাই আমরাও বলি না।”

বিক্ষোভ মিছিল শেষে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে সরকারের সাথে এক সঙ্গে কাজ করার ঘোষনা দেন জামায়াত নেতারা। দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে সরকারকে যেকোন সহযোগিতা করতে জামায়াত প্রস্তুত আছে বলে জানানো হয়।

5 Comments to “যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে জামায়াতের বিক্ষোভ মিছিল”

  1. জামায়াতের সাথে একাত্মতা পোষণ করছি… :p

    Like

  2. এবার নির্বাচনে আমার ভোটটা আমি জামায়াতকেই দেব । ওরাই মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তি । (রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় পরব নাতো?😛😛 )

    Like

  3. যতসব দোষ ফটোশপের

    Like

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: