ভারতের কৃষিমন্ত্রীর গালে চড়, যন্ত্রনায় শয্যাশায়ী আবুল হোসেন

নিজস্ব সংবাদদাতা

চড় খাওয়ার পর আবুলের কাছে ক্ষমা চাইছেন শারদ পাওয়ার

ভারতের কৃষিমন্ত্রী শারদ পাওয়ারকে চড় মেরেছে হরবিন্দর সিং নামের দিল্লির এক যুবক। দিল্লিতে অবস্থিত নয়াদিল্লি পৌর কর্পোরেশনে (এনডিএমসি) বৃহস্পতিবার একটি সাহিত্য বিষয়ক অনুষ্ঠান শেষে ওই ভবন থেকে বের হওয়ার সময় শারদ পাওয়ারকে চড় মারেন ক্ষুব্ধ হরবিন্দর।

দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে শারদ পাওয়ারের ব্যর্থতার কারণে ক্ষুব্ধ হয়ে হরবিন্দর তাকে চড় মারেন। এ সময় ব্যথা পেয়ে বাথরুমের মেঝেতে পড়ে যান বাংলাদেশের যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন। পড়ে যাওয়ার পর তিনি কিছুক্ষণ শুয়ে থাকেন। শোয়া অবস্থায় জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। বর্তমানে স্থানীয় একটি হাসপাতালে ব্যাথানাশক অষুধ খেয়ে শুয়ে আছেন।

হরবিন্দর সিং (২৪) পেশায় একজন টেম্পুচালক। মন্ত্রীকে চড় মারার পরপরই নিরাপত্তা কর্মীরা তাকে আটক করে। তার এমন আচরণের নিন্দা জানিয়েছে ভারতের রাজনীতিবিদরা। সমাজবাদী পার্টির নেতা মুলায়ম সিং যাদব এ ঘটনার নিন্দা জানিয়ে বলেছেন, “রাজনীতিবিদদের ওপর এ ধরনের হামলা সহ্য করা হবে না। দেহের এত অঙ্গ থাকতে গালের উপর ফিঙ্গারপ্রিন্ট বসাতে হবে কেন?”

সাংবাদিকদের একটি দল হাসপাতালে গেলে যোগাযোগমন্ত্রী হাসি চেপে রাখার চেষ্টা করেন। এ সময় সাংবাদিকরা হেসে দেন। দৈনিক মগবাজারকে সৈয়দ আবুল হোসেন বলেন, “স্কুল জীবনে এক চড় খাওয়ার পর গালের নকশা বদলে গেলে আমি সারাক্ষণ খালি হাসতাম। অনেকদিন পর আবার চড় খেয়ে হারিয়ে ফেলা নকশা ফিরে পেয়েছি। এখন থেকে আর হাসবো না।”

এদিকে সৈয়দ আবুলের আহত হওয়ার খবর পেয়ে এর নিন্দা জানিয়েছেন এলডিপি নেতা অলি আহমেদ। এক নিন্দাবার্তায় তিনি বলেন, “আজ জুতা ও ঝাড়ুপেটা খেয়েও আমি আহত হইনি, অথচ চড় পড়লো ভারতে আর আবুল পড়লো টয়লেটে! আমার দলের পক্ষ থেকে সৈয়দ আবুলকে ধিক্কার জানাই।”

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: