শেয়ার বাজার চাঙ্গা করা কোন ব্যাপারই না – দৈনিক মগবাজার সম্পাদক

রূপকথার বাজার

মাহমুদুর রহমান, নিজস্ব প্রতিনিধি

শেয়ার বাজারে করা বিনিয়োগ ফিরিয়ে আনতে না পেরে নি:স্ব হয়েছে প্রচুর বিনিয়োগকারী। সরকারের বিরুদ্ধে সুস্পষ্ট ক্ষোভ এসব বিনিয়োগকারীর। এদিকে অর্থমন্ত্রী শেয়ার বাজার বুঝেন না। তাঁর কাছে এটা রূপকথার বাজার। পুঁজি বাজারে দীর্ঘসময় ধরে চলতে থাকা এ অস্থিরতা নিয়ন্ত্রনে আনতে সরকার পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে। এমতবস্থায় দৈনিক মগবাজার বসে থাকতে পারে না। দৈনিক মগবাজার সম্পাদক জাতির এ ক্রান্তিলগ্নে এগিয়ে এসেছেন। শেয়ার বাজার চাঙ্গা করা নিয়ে তার গবেষনার উপর ভিত্তি করে আমাদের আজকের বিশেষ প্রতিবেদন। প্রতিবেদনটি তৈরি করেছেন দৈনিক আমারদেশ এর সম্পাদক মাহমুদুর রহমান।

পুঁজিবাজারকে স্থিতিশীল এবং চাঙ্গা করার জন্য লুট হওয়ার সমপরিমান টাকা আবার ফিরিয়ে আনতে হবে। সরকারের যেহেতু ওই টাকা ফিরিয়ে আনার ইচ্ছে নেই, সেহেতু বিকল্প পন্থা অবলম্বন করতে হবে। সেক্ষেত্রে নতুন নতুন খাত থেকে বাজারে অর্থ আনতে হবে।

ঈদ বখশিস

ঈদের সময় বয়স এবং পরিবারভেদে মানুষের হাতে প্রচুর ঈদ বখশিস থাকে। এসব বখশিসকে শেয়ার বাজারে নিয়ে আসতে হবে। এ খাত থেকে দু’ঈদে অন্তত ২ হাজার কোটি টাকা নিয়ে আসা সম্ভব। এর পাশাপাশি বখশিসের উপর আয়কর বসিয়ে সরকার প্রচুর রাজস্ব আয় করতে পারে। সামগ্রিক অর্থনীতে এর সুফল আমরা খুব দ্রুত পেতে থাকবো।

জন্মদিনের উপহার

প্রতিদিন দেশে ঘটা করে লাখ লাখ লোকের জন্মদিন পালন করা হয়। এসব জন্মদিনে শতশত কোটি টাকার উপহার সামগ্রী পাওয়া যায়। এমএলএম সিস্টেমের আওতায় একটি কম্পানি গঠন করে সে কম্পানিকে শেয়ার বাজারের অন্তর্ভূক্ত করে প্রতিদিন কয়েকশ কোটি টাকা পুঁজি বাজারে নিয়ে আসা যায়।

দেনমোহর

এখনতো কোটি টাকার কাবিনেও বিয়ে হয়। নূন্যতম ৫ লাখ টাকাতো বটেই। বাংলাদেশে প্রতিদিন ৫০ হাজার বিয়ে হলে সর্বনিম্ন আড়াই হাজার কোটি টাকার দেনমোহর নির্ধারিত হয়। বাংলাদেশ দেনমোহর কর্পোরেশন নামক কম্পানির অধীনে দেনমোহর শেয়ার ছাড়া যেতে পারে। এসব শেয়ারের দাম কোনদিনই কমবে না। সবসময় বাজার চাঙ্গা থাকবে। এবং দেনমোহরের টাকা ক্ষমা করে দেয়ার যে ফালতু সংস্কৃতি চালু হয়েছে, তা বন্ধ হয়ে যাবে। এর পাশাপাশি বাসর ঘরের উপহারও এক্ষেত্রে নিয়ে আসা যায়।

ভিক্ষা

শুধুমাত্র ঢাকা শহরের ভিক্ষুকদের আয় একসাথ করলেও দৈনিক ৫০ কোটি টাকা পুঁজিবাজারে নিয়ে আসা সম্ভব। নতুন নতুন আকর্ষনীয় ভিক্ষা কৌশলের ফলে এ খাত ধ্বসের কোন সম্ভাবনাই নেই। বরং ধীরে ধীরে পকেটমার, ছিনতাইকারীরাও শেয়ার বাজারে চলে আসবে। এখনতো পুঁজিবাজারের দখল বড় বড় চোরদের হাতে, এ জন্যই শেয়ার বাজার থেকে বড় অংকের টাকা লুট হয়ে গেছে। যখন এসব ছোট ছোট চোরের অধীনে শেয়ার বাজার চলে যাবে, তখন লুট হলেও কমই হবে বলে আশা করা যায়।

গবেষক দৈনিক মগবাজার সম্পাদক মনে করেন, এ কর্মকৌশল গ্রহণ করলে অবিশ্বাস্য ক্ষিপ্রতায় পুঁজিবাজার ঘুরে দাঁড়াবে। তিনি এ বিষয়ে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষন করছেন।

One Comment to “শেয়ার বাজার চাঙ্গা করা কোন ব্যাপারই না – দৈনিক মগবাজার সম্পাদক”

  1. Awesome boss.

    Like

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: