জাপানে বাংলাদেশী রাষ্ট্রদূতের পুটকীর নিরাপত্তা নেই

বিশেষ পাকিনিধি ।। ০৬ জুন ২০১১

জাপানে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এ কে এম মুজিবুর রহমান ভূঁইয়াকে প্রত্যাহার করে দেশে আনা হচ্ছে। জাপানের টোকিওতে দূতাবাসে চাকরি করা  স্থানীয় একজন নারী কর্তৃক যৌন হয়রানির কারণে তাকে দেশে ফিরিয়ে নেওয়া বা অন্য কোথাও বদলীর সুপারিশ করে তদন্ত কমিটি।

টোকিও দূতাবাসের সাবেক সোস্যাল সেক্রেটারি কিয়োকো তাকাহাসির বিরুদ্ধে অভিযোগের প্রেক্ষিতে দক্ষিণ কোরিয়ার সিউলে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত শহীদুল ইসলাম টোকিও যান তদন্তের কাজে।

জাপানে নিযুক্ত রাষ্ট্রদূত মুজিবুর রহমান রোববার টেলিফোনে দৈনিক মগবাজারকে বলেন, ‘সিউলের রাষ্ট্রদূত এসেছিলেন। তিনি ভালো মানুষ, আমার পুটকী মারেননি।’

অভিযোগপত্রে বলা হয়,‘চলতি বছরের ২৫ ফেব্রুয়ারি দূতাবাসের চাকরিতে যোগদানের পর থেকেই রাষ্ট্রদূতকে ২বার সুড়সুড়ি, ১বার চুমু এবং শেষবার রেপ করতে চেয়েছে জাপানী তরুনী কিয়োকো তাকাহাসি। তার সঙ্গে অযাচিত আচরণ করেন। এমনকি চাকরির ইন্টারভিউয়ের দিনও প্রশ্নের জবাবে আপত্তিকর উত্তর করেন।’

মগবাজারের হাতে আসা মুজিবর রহমানের অভিযোগ পড়ে জানা যায়, “মুজিবর রহমানকে দেখলে জাপানী তরুণীরা পাগল হয়ে যায়। বারবার তাকে যৌন নির্যাতন করেছে জাপানিরা। কেবল জাপানী মেয়েরাই নয়, জাপানী ছেলেরা পর্যন্ত তাকে পেলে পেছন থেকে পুটকী টিপে দৌড় দেয়।“

দূতাবাসের সোস্যাল সেক্রেটারি পদটি শূণ্য থাকায় তা নিয়োগের বিজ্ঞাপন দেন রাষ্ট্রদূত। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হয়। ১০ ফেব্রুয়ারি এ কে এম মজিবুর রহমান চাকরি প্রার্থীদের ইন্টারভিউ নেন।

মুজিবর রহমান অভিযোগ করেন,“ইন্টারভিউয়েই আমি তাকে জিজ্ঞাসা করলাম,তাকাহাসি আমাকে চুমু খেতে পারবে কী না?”  জবাবে তাকাহাসি বলে, “খালি চুমু কেন, তোর পুটকী মারতেও পারবো।“

এরপর ১৪ ফেব্রুয়ারি আবারও তাকাহাসিকে ইন্টারভিউয়ে ডাকা হয়। সেদিন রাষ্ট্রদূতের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে প্রশ্ন করে,যার ধরণ খুবই আপত্তিকর ছিল বলে মুজিবর রহমান উল্লেখ করেন। তাকাহাসি তার শরীরের দিকে ইংগিত তুলেছিলো।

মুজিবর রহমান বলেন, “আমার স্ত্রীও আমাকে যৌন নির্যাতন করতো। তাই আমি তাকে ঢাকায় ফেলে রেখে জাপান থাকতাম। কিন্তু সেখানে মেয়েদের পাশাপাশি ছেলেরাও আমার পুটকী মারতে চায়।“

তিনি আরো বলেন, একদিন তাকাহাসিকে নিয়ে নদীর ধারে বেড়াতে যাই। সেখানে ওৎ পেতে থাকা তার বয়ফ্রেন্ডরা আমাকে ঘিরে ধরে আমার পুটকীকে ক্রসফায়ারে ফেলতে চেয়েছিলো।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: